ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ৫৬ মিনিট আগে

রাজধানীতে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ শুরু

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২১ জুলাই ২০২১, ১৫:২০

রাজধানীতে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদুল আজহার পশু কোরবানি শেষে রাজধানীতে শুরু হয়েছে বর্জ্য অপসারণের কাজ। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকা থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য সরানোর আশ্বাস দিয়েছেন ঢাকা উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। এ জন্য বুধবার দুপুরের পর থেকে পুরোদমে শুরু হয়েছে কার্যক্রম।

বর্জ্য সরানোর জন্য দুই সিটিতে নিয়োজিত রয়েছেন ২১ হাজার পরিচ্ছন্নতাকর্মী। ভাটারা সাঈদ নগর হাট এলাকায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। একযোগে সব ওয়ার্ডেই দুপুর ২টা থেকে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, এবছর ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন অন্তর্ভুক্ত নতুন এলাকাসহ ৫৪ ওয়ার্ডে দুই লক্ষাধিক পশু কোরবানি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যা গত বছরের তুলনায় কিছুটা কম। এবার কোরবানির জন্য ২৫০ জন ইমাম ও ২৫০ জন মাংস প্রস্তুতকারীকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়া নিজস্ব বর্জ্যবাহী ট্রাক, ভারী যন্ত্রপাতি, ওয়াটার বাউজারের পাশাপাশি আউটসোর্সিং হতে অতিরিক্ত গাড়ি নিয়োজিত করা হয়েছে। বর্জ্য পরিবহনে প্রয়োজনীয় যান-যন্ত্রপাতি নিয়োজিত করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে ঈদের পূর্বের দিন থেকে ঈদের পরবর্তী ২ দিন নিরবচ্ছিন্নভাবে বর্জ্য অপসারণের জন্য বর্জ্যবাহী ড্রাম্প ট্রাক, খোলা ট্রাক,ভারী যান-যন্ত্রপাতি, পানির গাড়ি, বেসরকারি এবং ভাড়ায় পিকআপ ভ্যানসহ ৪৯৩টি গাড়ি নিয়োজিত থাকবে।

অন্যদিকে একই সময় ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৭৫টি ওয়ার্ডে একযোগে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ডিএসসিসি জানিয়েছে, কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ তদারকিতে ১০টি টিম গঠন করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ডিএসসিসি।

পাশাপাশি একটি কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষও স্থাপন করা হয়েছে। বুধবার দুপুর ২টা হতে ২৪ জুলাই দুপুর ২টা পর্যন্ত দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এলাকা ও পশুর হাটগুলোর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সরেজমিন মাঠ পর্যায়ে তদারকির জন্য গঠিত টিমগুলো কাজ করবে। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে কর্পোরেশনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সমন্বয়ে এই টিমগুলো গঠন করা হয়েছে।

এ ছাড়াও কর্পোরেশনের শীতলক্ষ্যা হলে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম সচিত্র তদারকির জন্য একটি কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষে স্থাপন করা হয়েছে। কর্পোরেশনের আওতাধীন যে কোন নাগরিক তার নিজ এলাকায় সৃষ্ট বর্জ্য সম্পর্কিত তথ্যাদি প্রেরণ বা পশুর বর্জ্য অপসারণ সম্পর্কিত সুরাহার জন্য কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ০১৭০৯৯০০৮৮৮ নম্বরে ফোন করে জানাতে পারবেন।

কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষে করপোরেশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ তিন শিফটে ১৮ জুলাই দুপুর ২টা হতে ২৪ জুলাই দুপুর ২টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মাঠ পর্যায়ে চলমান বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম তদারকি করবেন।

পাশাপাশি ৯০টি খোলা ট্রাক, ৫৩টি কম্পেক্টর, ১২টি পানির পানির গাড়ি, ১০২টি ডাম্প ট্রাক, ১৪টি পে-লোডার, ৮১টি কন্টেইনার ক্যারিয়ার, ৯টি টায়ার ডোজার, ২টি ট্রেলার, ৯টি স্কিড লোডারসহ প্রায় পৌনে ৪০০ যান-যন্ত্রপাতি মাঠ পর্যায়ে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমে নিযুক্ত থাকবে।

এ ছাড়াও নিয়মিত পাঁচ হাজার কর্মীর পাশাপাশি অতিরিক্ত আরও চার হাজার ৯৯০ জন কর্মী কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে নিযুক্ত থাকবে। পাশাপাশি ঈদ উপলক্ষে ইতোমধ্যে প্রতি কাউন্সিলরকে ১ হাজার করে এবং আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদেরকে ১ হাজার ৫০০টি পরিবেশবান্ধব থলে প্রদান করা হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত