ঢাকা, সোমবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮ আপডেট : ৫ মিনিট আগে

বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে ধর্ষণ, কাউন্সিলর গ্রেপ্তার

  বরিশাল প্রতিনিধি

প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ২০:২৮

বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে ধর্ষণ, কাউন্সিলর গ্রেপ্তার
কাউন্সিলর আজাদ হোসেন কালাম মোল্লা। ফাইল ছবি
বরিশাল প্রতিনিধি

বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদ হোসেন কালাম মোল্লার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে নগরীর বিমানবন্দর থানায় মামলা দায়েরের পর কালাম মোল্লাকে গ্রেপ্তার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে কালাম মোল্লার নিজ বসতবাড়ির কাছে একটি টিনসেড ঘরে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

কালাম মোল্লা নগরীর ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং বরিশাল বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি। তার ভাই লিটন মোল্লা সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের টানা দুইবারের চেয়ারম্যান। নির্যাতিত তরুণী অভিযুক্ত কালাম মোল্লার প্রতিবেশী ও বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ওই তরুণীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময়ে ধর্ষণ করে আসছিলেন কালাম মোল্লা। সবশেষ গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে কালাম মোল্লা তার বাড়ির পাশে একটি টিনসেড ঘরে নিয়ে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে। পরে সে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়।

এ ঘটনায় আজ শুক্রবার বিকেলে ওই তরুণী নগরীর বিমানবন্দর থানায় মামলা দায়ের করেন। তাকে পুলিশের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিমানবন্দর থানার ওসি কমলেশ চন্দ্র হালদার।

এ ঘটনার পর কালাম মোল্লা কুয়াকাটা যাওয়ার পথে আজ সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার হয়েছেন। কালাম মোল্লাকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি স্বীকার করলেও তাকে কোথা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে সে বিষয়ে কিছু জানাননি বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) মো. জাকির হোসেন মজুমদার।

স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই তরুণী অবিবাহিত এবং কালাম মোল্লার প্রতিবেশী। তার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। কালাম মোল্লার সাথে ওই তরুণীর পূর্বপরিচয় এবং সম্পর্ক ছিলো বলে এলাকায় লোকমুখে প্রচার আছে। এর আগে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেছিলেন ওই তরুণী। কালাম মোল্লা পরিবার প্রভাবশালী হওয়ায় রাজনৈতিক চাপে ওই মামলার কোনো প্রতিকার আজ পর্যন্ত তিনি পাননি। কালামের ছোট ভাই কাশীপুর ইউপি চেয়ারম্যান লিটন মোল্লার বিরুদ্ধেও চলন্ত বাসে তরুণী ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। কালাম-লিটন সহোদরের বিরুদ্ধে এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা ও অবৈধ দখলসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত