ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ আপডেট : ৬ মিনিট আগে

শাবির আন্দোলনকারীদের টাকা দেয়ায় সাবেক ৩ শিক্ষার্থী আটকের অভিযোগ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:৫০

শাবির আন্দোলনকারীদের টাকা দেয়ায় সাবেক ৩ শিক্ষার্থী আটকের অভিযোগ
ছবি সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের খাবার ও চিকিৎসার জন্য ‘টাকা দেয়ায়’ ঢাকায় বসবাসরত বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক তিন শিক্ষার্থীকে তুলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে সিআইডির বিরুদ্ধে।

সোমবার বিকেলে উত্তরা এবং ফার্মগেট এলাকা থেকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডির টিম তাদের তুলে নিয়ে যায় বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগীর স্বজনরা।

আটকদের মধ্যে হাবিবুর রহমান স্বপন বিশ্ববিদ্যালয়টির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগ থেকে পাস করেছেন ২০১২ সালে। একই বছর আর্কিটেকচার বিভাগ থেকে পাস করেছেন রেজা নূর মঈন দীপ এবং নাজমুস সাকিব দ্বীপ।

এবিষয়ে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, সিআইডি থেকে এমন কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। এমন কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই।

হাবিবুর রহমানের বন্ধু রেজা সিদ্দিকী বলেন, আমি যতটুকু হাবিবের কাছ থেকে শুনেছি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তার কাছে ফোন করে টাকা চেয়েছিল। সে বিকাশের মাধ্যমে ১০০০ টাকা পাঠিয়েছিল। এ ঘটনার জন্য সিআইডি একটি টিম সোমবার বিকালে উত্তরা আগোরার সামনে থেকে হাবিবকে এবং মঈনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায়। যখন তাদের সিআইডির টিম নিয়ে যাচ্ছে তখন সিআইডি টিমের সঙ্গে আমার কথা হয়। তারা আমাকে একটি কার্ড দিয়ে যোগাযোগ করতে বলে। তারা আমাদের জানায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এদিকে, নাজমুস সাকিবের স্ত্রী নদী জানান, সাকিবের অফিস থেকে জানানো হয়েছিল সিআইডি সদস্যরা তাকে খুঁজছে। তার সঙ্গে কথা বলার জন্য তার বাসার ঠিকানা সংগ্রহ করেছে। এ বিষয়টি ঠিক নাকি ভুল, আবার কোনও প্রতারণার চক্কর কিনা, সেজন্য আমি আমার স্বামীকে থানায় পাঠাই। পরবর্তীতে জানতে পারি তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সিআইডির একটি টিম তাকে ধরে নিয়ে গেছে।

কিন্তু গতকাল সিআইডির মালিবাগ সদরদপ্তরের সামনে গিয়েও কোনও হদিস মেলেনি তার।

তিনি আরও বলেন, শাহজালাল থেকে কয়েক শিক্ষার্থী তাকে ফোন করে কিছু টাকা সহায়তা চায়। পরবর্তী সময়ে সে বিকাশের মাধ্যমে দুই হাজার টাকা পাঠিয়েছিল। এটাই হয়তো তার অপরাধ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আটকদের বিরুদ্ধে সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানায় মামলা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানায় পুলিশের ওই সূত্র।

তবে এ বিষয়ে জানতে সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার আশরাফ উল্যাহ তাহের বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, শাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আটকের বিষ্যে আমি কিছু জানিনা। আমাদের কোন টিম ঢাকা থেকে কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। বিষয়টি আমি পত্রিকা থেকে জেনেছি টাকা যোগান দেয়ার অভিযোগে সিআইডির একটি টিম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের আটক করেছে বলে শুনেছি। একটা কার্ডের কথা বলা হয়েছে। সেটাও আমার কার্ড না।

বাংলাদেশ জার্নাল/এফজেড/এএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত