শিক্ষককে হেনস্তার ঘটনা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা

প্রকাশ : ২৯ জুন ২০২২, ১৬:৫৪ | অনলাইন সংস্করণ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

শিক্ষককে হেনস্তার ঘটনায় পুলিশ কিংবা জনপ্রতিনিধি যারই গাফিলতি থাকুক না কেন, খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।  বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

এদিকে সাভারে একজন শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় দায়ী শিক্ষার্থীর বাবাকে আটক করা হয়েছে। শিগগিরই ওই শিক্ষার্থীকেও আইনেরও আওতায় আনা হবে বলেও জানান তিনি। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে মহাসড়ক এবং সড়কে কোনো পশুর হাট বসবে না। আর পশুর হাটে মাস্কপরা বাধ্যতামূলক এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে সবাইকে।

তিনি আরও বলেন, যেকোনো ধরনের নাশকতা ঠেকাতে গোয়েন্দা নজরদারি জোরদার করা হয়েছে। এ ছাড়াও মহাসড়কে পশুবাহী ট্রাকে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য,  গত ১৮ জুন পুলিশের সামনেই নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানো হয়।

গতকাল (২৮ জুন) জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নির্দেশনায় বলা হয়, ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে একজন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশে অনাকাঙ্ক্ষিত। এ ঘটনা একজন ব্যক্তির মানবিক মর্যাদাকে ক্ষুণ্ন করেছে। পুলিশের উপস্থিতিতে কীভাবে এ ধরনের দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, তা বোধগম্য নয়।

ওই ঘটনায় পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় তদন্ত করে দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। এ ছাড়া খুলনার বিভাগীয় কমিশনারকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। মঙ্গলবার জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এসব কথা বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএম