ঢাকা, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ আপডেট : ১৫ মিনিট আগে

চুরির অপবাদ সইতে না পেরে যুবলীগকর্মীর আত্মহত্যা

  চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশ : ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬:১৬  
আপডেট :
 ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬:৩৪

চুরির অপবাদ সইতে না পেরে যুবলীগকর্মীর আত্মহত্যা
ছবি: প্রতিনিধি
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

ফটিকছড়ির ভূজপুরে মোবাইল চুরির অপবাদে যুবলীগকর্মী রফিকুল ইসলামকে (৪৫) মারধর শেষে মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনা ঘটেছে। এ অপমান সইতে না পেরে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে যুবলীগকর্মী রফিকুল ইসলাম।

সোমবার সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

রফিকুল ভূজপুর থানার ২নং দাঁতমারা ইউনিয়নের বাংলা পাড়া গ্রামের জন্তুর আলীর ছেলে। সে দাতঁমারা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড যুবলীগকর্মী এবং দুই কন্যা সন্তানের জনক।

নিহতের পরিবার জানায়, রোববার (১৪ আগষ্ট) সকাল ৯টায় দাঁতমারার হেয়াকো বাজারে রফিকের পাশের দোকানে মোবাইল চুরির মতো সাজানো ঘটনায় তিনি অপমান সহ্য করতে না পেরে বিষপান করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নিহত যুবলীগকর্মীর মামা শ্বশুর শ্রমিক লীগ নেতা আবুল হাসেম। তিনি এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা কমলের বিরুদ্ধে মোবাইল চুরির অপবাদে তার ভাগ্নে রফিকুলকে মারধর ও মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

ঘটনার বর্ণনায় পরিবার জানিয়েছে, একই বাজারে রফিকুলের কাঠের নকশা তৈরির দোকান করেন। পাশের দোকানদার মো. ওসমান। রফিকুল ভালো নকশার কাজ করেন। এজন্য তার ক্রেতা বেশি। এটা সহ্য করতে পারেনি পাশের দোকানদার ওসমান। ঘটনার দিন রফিকুলের দোকানের ভেতর হারুন, মোখলেছ, তাহের, রাজন ও কালাম মিলে একটি মোবাইল ফেলে রাখেন।

এর পর মোবাইল চুরির ঘটনা সাজিয়ে স্থানীয় কমলের অফিসে রফিকুলকে নিয়ে যান। ওখানে রফিককে মারধর করে চোর বলে আখ্যা দেন। পরে ৫ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ আদায় করেন। সে অপমান সহ্য করতে না পেরে রোববার বিকেল ৩টায় বাসায় বিষপান করেন। পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে আজ সকালে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় রফিকের পরিবারের পক্ষ থেকে ভূজপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ জমা দেয়া হয়েছে বলে জানান নিহতের স্ত্রী কুলসুমা বেগম।

স্থানীয় ইউপি সদস্য কামাল উদ্দিন বলেন, রফিকুল ইসলাম সাদাসিধে ও অত্যন্ত সরল প্রকৃতির ছিলো। পূর্বে কোনো দিন তার বিরুদ্ধে চুরি বা খারাপ কাজের কোনো ধরণের অভিযোগ পাওয়া যায়নি। গতকাল চুরির অপবাদ সইতে না পেরে তিনি বিষপান করে আত্মহত্যা করেছেন।

এ বিষয়ে ভূজপুর থানায় থানার ওসি মো. হেলাল উদ্দিন ফারুকী বলেন, হেয়াকোর যুবলীগকর্মী রফিককে মোবাইল চুরির অপবাদে মারধর ও মুক্তিপণের অভিযোগ দিয়েছে তার পরিবার। আজ সকালে চমেক হাসপাতালে মৃত্যু হয় বলে জানিযেছে তার পরিবারের সদস্যরা। ময়নাতদন্ত করে লাশ দাফনের প্রস্তুতি চলছে এবং তার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতিও চলছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/রাজু

  • সর্বশেষ
  • পঠিত