ঢাকা, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ আপডেট : ২২ মিনিট আগে
শিরোনাম

প্রাইভেটকারের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: পুলিশ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ২১:৫৩  
আপডেট :
 ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ২২:৩৮

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: পুলিশ
এই প্রাইভেটকারেই টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় ওই নারীকে। ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় প্রাইভেটকারের নিচে ফেলে রুবিনা আক্তার (৪০) নামে এক নারীকে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করে এই ঘটনায় মামলা করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, এটি কোনো দুর্ঘটনা নয়, হত্যাকাণ্ড। গাড়িচালক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক মোহাম্মদ আজহার জাফর শাহ’র সর্বোচ্চ শাস্তির বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপে সহায়তার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

শুক্রবার রাতে শাহবাগ থানায় সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি’র রমনা বিভাগের ডিসি মো. শহিদুল্লাহ এসব কথা জানিয়ে আরও বলেন, আমরা জানতে পেরেছি, ওই নারী দেবরের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে শ্বশুরবাড়ি থেকে বাবার বাড়ি হাজারীবাগে যাচ্ছিলেন। তারা যখন শাহবাগ থেকে টিএসসির আগে কাজী নজরুলের মাজারের উল্টো দিকের রাস্তায় পৌঁছান, তখন প্রাইভেটকারটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। এতে ওই নারী সড়কে পড়ে যান ও প্রাইভেট কারের সঙ্গে আটকে যান। তবে চালক গাড়িটি না থামিয়ে টেনে-হিঁচড়ে তাকে নিয়ে যান। অনেক চেষ্টা করেও তাকে থামানো যায়নি। উনি টিএসসি পৌঁছালে আমাদের মোবাইল টিমও তাকে থামানোর চেষ্টা করে। তারপরও উনি গাড়ি না থামিয়ে নীলক্ষেত মোড়ের দিকে চলে যান। পরে উত্তেজিত জনতা তাকে থামায়।

তিনি বলেন, গাড়ির চালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক। উত্তেজিত জনতার পিটুনিতে তার অবস্থাও সংকটাপন্ন। সাবেক শিক্ষক স্বাভাবিক ছিলেন কি না তা তদন্তের পাশাপাশি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিসি আরও বলেন, যেহেতু এটা মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা, তাই আমরা একটা মামলা নেব। গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সড়ক আইন অনুযায়ী রেকলেস ড্রাইভিংয়ে মৃত্যু ঘটনার শাস্তির বিধান আছে। এই আইনে তার যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয়, সেটি আমরা চেষ্টা করব।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার পর আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ওই শিক্ষকের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। একটা নম্বর পেয়েছি। তবে ঘটনা জানাতে যোগাযোগের পর থেকে মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। তাদের কারও সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ পেলে সাবেক ওই শিক্ষক সুস্থ নাকি অসুস্থ ছিলেন সে বিষয়ে জানা যেত।

নিহতদের পক্ষে এখন পর্যন্ত কেউ মামলা করতে আসেননি জানিয়ে ডিসি শহীদুল্লাহ্ বলেন, উনারা হয়তো ব্যস্ত আছেন। কিছুক্ষণ পর আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।

দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো নারী রুবিনা আক্তার তিনি গৃহবধূ ছিলেন রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার বাসিন্দা রুবিনার ১২ বছরের ছেলে সন্তান রয়েছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন। আর গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক আজাহার জাফর শাহ।

শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে ঢাবির কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ এলাকায় রুবিনাকে প্রাইভেটকার ধাক্কা দেয়। এতে ওই নারী গাড়ির নিচেই আটকে পড়েন। পরে চালক গাড়ি না থামিয়ে বেপরোয়া গতিতে টিএসসি দিয়ে নীলক্ষেত এলাকার দিকে যাচ্ছিলেন। এসময় উপস্থিত জনতা গাড়ির দিকে ইট-পাটকেল মারতে থাকলেও চালক গাড়ি থামাননি। পরে নীলক্ষেত মোড়ে গাড়ি আটকা পড়লে চালককে গণপিটুনি দেন উপস্থিত জনতা। এতে গুরুত্বর আহত হন চালক। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। গাড়ির ধাক্কায় আহত নারী হাসপাতালে বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

বাংলাদেশ জার্নাল/সুজন/এমপি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত