ঢাকা, বুধবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১২ আশ্বিন ১৪৩০ আপডেট : ৮ মিনিট আগে
শিরোনাম

জামিন নিয়ে ফেরারি প্রায় ৫০ হাজার আসামি

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০৪ জুন ২০২৩, ২২:২৮  
আপডেট :
 ০৪ জুন ২০২৩, ২২:২৯

জামিন নিয়ে ফেরারি প্রায় ৫০ হাজার আসামি
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীসহ সারাদেশে জামিন নিয়ে লাপাত্তা হয়ে গেছে জিআর (জেনারেল রেজিস্ট্রার) ও সিআর (কোর্ট রেজিস্ট্রার) মামলার প্রায় ৫০ হাজার আসামি।

পুলিশের একটি সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য মতে, লাপাত্তা প্রায় ৫০ হাজার আসামির মধ্যে জিআর (জেনারেল রেজিস্ট্রার) মামলার ২৭ হাজার ৯৫১ এবং সিআর (কোর্ট রেজিস্ট্রার) মামলার ওয়ারেন্ট ১২ হাজার ৮৫২টি। এছাড়া ১০ মাসে আদালত থেকে ডিএমপির ও বিভিন্ন জেলা পুলিশের কাছে কাছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা পাঠানো হয়েছে আরও প্রায় ৭ হাজার ৪৪৭টি। তাদের গ্রেপ্তারে জোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে। যদিও পুলিশের অপর একটি সূত্রের দাবি ফেরারি এসব আসামির মধ্যে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন এবং সমমনা দলের নেতাকর্মীরা রয়েছেন। তারা বাসায় অবস্থান না করার কারণে তাদের খুঁজে পেতে বেগ পেতে হচ্ছে।

জানতে চাইলে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারের উপ-কমিশনার ফারুক হোসেন বলেন, ওয়ারেন্ট বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিল করা একটি চলমান প্রক্রিয়া। প্রতিদিন যে পরিমাণ ওয়ারেন্ট তামিল করা হয়, তার চেয়ে তিনগুন নতুন ওয়ারেন্ট আসে। এ কারণে ডিএমপির ৫০টি থানায় বিপুল পরিমাণ ওয়ারেন্ট পেন্ডিং আছে। এসব ওয়ারেন্ট কীভাবে দ্রুত তামিল করা যায়, সে বিষয়ে পরবর্তী ক্রাইম কনফারেন্স সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের তাগিদ দেয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পরোয়ানাপ্রাপ্ত কোনো আসামির সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের যোগসাজসের প্রমাণ পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জানা গেছে, গত ১০ বছরে ঢাকাসহ সারা দেশের অন্তত ৫০ হাজার আসামির হদিস মিলছে না। তাদের মধ্যে জঙ্গি, আন্ডারওয়ার্ল্ডের শীর্ষ সন্ত্রাসীসহ নানা অপরাধের আসামি রয়েছে। ওইসব আসামির আদালতে নিয়মিত হাজিরা দেয়ার কথা থাকলেও তারা গরহাজির বলে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে যেসব আসামির হদিস নেই তাদের খুঁজে বের করতে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সব মহানগর পুলিশ কমিশনার, সব ইউনিট ও রেঞ্জ ডিআইজি ও ৬৪ জেলার পুলিশ সুপারদের। এলাকাভিত্তিক তালিকা করতে থানার ওসিদের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশ সুপাররা। ইতোমধ্যে তালিকা তৈরির কাজ প্রায় শেষ করে আনা হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, প্রতিদিনই আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে আসছেন বিভিন্ন মামলার আসামিরা। জামিন মিললেও তাদের ধার্য তারিখে আদালতে হাজিরা দিতে হয়। কিন্তু আন্ডারওয়ার্ল্ডের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও যুদ্ধাপরাধী থেকে শুরু করে জঙ্গি কিংবা বড় অঙ্কের প্রতারণার মামলার আসামিরা আদালতে হাজিরা দিচ্ছেন না বলে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে। তাদের হয়ে উকিল বারবার সময় চেয়ে নিচ্ছেন আদালত থেকে। এ কারননে মামলা নিস্পত্তির হার কমানোর সম্ভব হচ্ছে না।

পুলিশ সদর দপ্তরের একটি সূত্র মতে, প্রায় এক মাস আগে লাপাত্তা হওয়া আসামিদের নিয়ে একটি বৈঠক হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তরে। তাদের অবস্থান চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে তালিকা করতে বলা হয়েছে পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিট ও দপ্তরকে। এমনকি যারা দেশের বাইরে পালিয়ে গেছেন তাদের ধরতে ইন্টারপোলের সহায়তা নিতে বলা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর দায়রা আদালতের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, জামিন নিয়ে অনেক অপরাধী নিয়মিত হাজিরা দিচ্ছেন না, তা সত্য। যে কোনো আসামি জামিন নেয়ার সময় শর্ত দেয়া হয়। কিন্তু প্রায়ই দেখা যাচ্ছে জামিনের পর অনেকেই শর্ত মানেন না। যারা জামিনের শর্ত মানছেন না তাদের আইনজীবীদের শোকজের আওতায় আনা প্রয়োজন। এই জন্য আমরা কাজ করছি।

তিনি আরও বলেন, ওইসব আসামি আদালতে গরহাজির থাকলে তাদের গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারি করে আদালত। তাদের ধরতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীগুলো কাজ করছে। জামিন নিয়ে অনেকে দেশের বাইরে পালিয়ে গেছেন। কয়েকজনের জন্য ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারি করা আছে। সরকারি এই কৌঁসুলি বলেন, জামিন নিয়ে লাপাত্তা অপরাধীদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে দেশের প্রতিটি আদালতকে বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রণালয়। আমরাও বেশ সতর্ক আছি। ইতিমধ্যে লাপাত্তা হওয়া অপরাধীদের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত দশ বছরের ব্যবধানে লাপাত্তা প্রায় ৫০ হাজার আসামি কোথায় আছেন তা চিহ্নিত করতে হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ। তাদের অবস্থান চিহ্নিত করতে পুলিশের সবকটি ইউনিট সক্রিয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/সুজন/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত