ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে

তেজগাঁও কলেজে ‘গলাকাটা’ ফি

  আসিফ কাজল

প্রকাশ : ২১ মে ২০২২, ১৯:২৮  
আপডেট :
 ২১ মে ২০২২, ২০:০২

তেজগাঁও কলেজে ‘গলাকাটা’ ফি
আসিফ কাজল

রাজধানীর ফার্মগেটে অবস্থিত তেজগাঁও কলেজে শিক্ষার্থীদের থেকে ‘গলাকাটা’ ফি আদায় করছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স পর্যায়ে প্রতি বিষয়ে ১৮৭০ টাকা ফি নির্ধারণ করে দিলেও শিক্ষার্থীদের থেকে ৪ হাজার টাকা নিচ্ছে কলেজ প্রশাসন। এরফলে গরিব শিক্ষার্থীরা চরম সংকটে পড়েছে। তেজগাঁও কলেজের একাধিক ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বাংলাদেশ জার্নালকে এ বিষয়ে অভিযোগ করেছেন।

কলেজের মার্কেটিং বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, পারিবারিকভাবে দারিদ্রতার মধ্যেও উচ্চশিক্ষা গ্রহণে কলেজে পড়ছি। পরিবার আমাকে কোনোভাবেই আর্থিক সাহায্য করতে পারে না। যে কারণে একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে নিজের খরচ চালাচ্ছি। কিন্তু কলেজ একটি বিষয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে যে পরিমাণ টাকা নিচ্ছে তা আমার পক্ষে দেয়া অনেক কষ্টকর। এ বিষয়ে কোথায় অভিযোগ দিবো আর কি প্রতিকার হবে সে বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।

জানতে চাইলে কলেজটির মার্কেটিং বিভাগের অধ্যক্ষ মাহবুবর রহমান বলেন, কলেজের ফি এর বিষয়টি নির্ধারণ করে অধ্যক্ষ তথা কলেজ প্রশাসন। এই বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে পারবো না। তবে শিক্ষার্থীদের থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বেধে দেয়া ফির থেকে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার কথা স্বীকার করেন তিনি।

ভুক্তভোগীরা জানান, বিষয় মানোন্নয়ন বা কোনো বিষয়ে অকৃতকার্যের জন্য বিষয়প্রতি ১৮০০ টাকা করে নেয়ার কথা। এর সঙ্গে অতিরিক্ত বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হলে বিষয় প্রতি আরও ২০০ টাকা যুক্ত করতে হবে শিক্ষার্থীদের। কিন্তু তেজগাঁও কলেজ ১৮০০ টাকার বদলে ৪০০০ টাকা করে নিচ্ছে, আর অকৃতকার্যে সাবজেক্টপ্রতি ২০০ টাকা নেয়ার কথা থাকলেও এখানেও শিক্ষার্থীদের থেকে বেশি টাকা নেয়া হচ্ছে।

এছাড়াও অভিযোগ রয়েছে, ১ম বর্ষে অনার্স পর্যায়ে রেজিষ্ট্রেশন ফি বাবদ ৬ হাজার ৪০০ টাকা করে নিয়েছিলো কলেজ। অন্যদিকে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদেও থেকে সাত থেকে আট হাজার টাকা নেয়া হয়েছিল। যেখানে অন্যান্য কলেজ মাত্র দুই থেকে তিন হাজার টাকা নিয়েছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ৯ মে অনার্স প্রথম বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

এতে বলা হয়, ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের নিয়মিত, ২০১৯-২০, ১৮-১৯ ও ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের অনিয়মিত ও গ্রেড উন্নয়ন এবং ২০১৪-২০১৫, ১৫-১৬ ও ১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শুধুমাত্র প্রমোটেড শিক্ষার্থীগণ এফ গ্রেডপ্রাপ্ত কোর্সে ২০২১ সালের অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে।

এ বিষয়ে পরীক্ষার্থীদের ফি এর বিবরণও প্রকাশ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। যা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, তত্ত্বীয় (প্রতি পূর্ণপত্র) বিশ্ববিদ্যালয়ে জমা হবে ২৫০ টাকা। তত্ত্বীয় (প্রতি অর্ধপত্র) বাবদ ব্যবহারিক (প্রতি পত্র/কোর্স) বিশ্ববিদ্যালয়ে জমা হবে ২০০ টাকা। কেন্দ্র ফি তত্ত্বীয় (প্রতি পরীক্ষার্থী) কলেজে জমা দেবে ৪৫০ টাকা। কেন্দ্র ফি বাবদ পরীক্ষার্থীরা জমা দেবে ১২০ টাকা। বিশেষ অন্তভুক্তি ফি বাবদ জমা দিতে হবে ৩০০ টাকা। সর্বোমোট ১৮৭০ টাকা।

অন্যদিকে জাতীয় কলেজের বিজ্ঞপ্তিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আলাদা বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে তেজগাঁও কলেজ। বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায়, একটি পত্রের গ্রেড উন্নয়ন ফি বাবদ শিক্ষার্থীদের জন্য চার হাজার টাকা, দুইটি পত্রের জন্য চার হাজার দুশো পঞ্চাশ টাকা একইভাবে ৬ পত্রের জন্য ৫ হাজার ২’শ পঞ্চাশ টাকা নির্ধারণ করেছে। চলতি মাসের ১২ মে থেকে জুনের ৯ তারিখ পর্যন্ত ফি এর টাকা জমা দেয়ার কথাও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

অতিরিক্ত ফি কেন শিক্ষার্থীদের থেকে নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারি তেজগাঁও কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. হারুন-অর- রশিদের মুঠোফেনে কল দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেননি।

বিষয়টি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড.মশিউর রহমানকে জানানো হলে তিনি বলেন, এভাবে যদি শিক্ষার্থীদের থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হয় তা সম্পূর্ণ অনৈতিক। তেজগাঁও কলেজ ছোট কোনো কলেজ নয়। বিষটি গুরুত্বসহকারে দেখা হবে। ঘটনা সত্য হলে অবশ্যই এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

বাংলাদেশ জার্নাল/একে/এমএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত