ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯ আপডেট : ৩ মিনিট আগে

১০ বছর পর নির্মাণে আরাফাত মহসীন

  বিনোদন প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৮ আগস্ট ২০২২, ১৫:৪৮  
আপডেট :
 ১৯ আগস্ট ২০২২, ০১:৩২

১০ বছর পর নির্মাণে আরাফাত মহসীন
বিনোদন প্রতিবেদক

শৈশব থেকেই স্বপ্ন ছিলো চলচ্চিত্র নির্মাতা হবেন কিন্তু চাইলেই তো আর তা হওয়া যায়না এরজন্য শিক্ষার প্রয়োজন। আর্ট, মিউজিক, সম্পাদনা, পরিচালনা- এই বিষয়গুলোতে পারদর্শী হতে হবে। আর তাই ছোটবেলা থেকেই আর্ট এবং গানে ঝুঁকে পড়েন আরাফাত মহসীন নিধি। ২০১০ সালে বাংলালিংকের একটি জিঙ্গেল দিয়ে সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। এরপর থেকে গত এক যুগে অসংখ্য বিজ্ঞাপনচিত্রের জিঙ্গেল বানিয়েছেন তিনি। তৈরি করেছেন আলোচিত কিছু গানও। বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল থেকে শুরু করে নাটক-সিনেমার আবহ সঙ্গীত এবং অসংখ্য গান করেছেন তিনি, যেগুলো দর্শকমহলে বেশ প্রশংসিত। এর বাইরে তিনি একজন নির্মাতাও। নির্মাণ করেছেন বিজ্ঞাপন, এমনকি নাটকও।

সম্প্রতি আবারও পরিচালনায় ফিরেছেন তরুণ জনপ্রিয় এ সঙ্গীত পরিচালক। নির্মাণ করেছেন একটি বিজ্ঞাপন। সিনকাট পিকচার্সের ব্যানারে, এফসি বিটপি এজেন্সির নির্মিত এ বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন সাবা চৌধুরী। রাজধানীর একটি লোকেশনে এর শুটিং শেষ হয় গতকাল বুধবার। শিগগিরই এটি প্রচারে আসবে।

আরাফাত মহসীন জানান, প্রায় ১০ বছর পর নির্মাণে ফিরেছেন তিনি। এর আগে সর্বশেষ ২০১২ সালে তিনি নির্মাণ করেছিলেন নাটক ‘জোনাক পোকা’। এছাড়াও এরমধ্যে তিনি বেশকিছু বিজ্ঞাপনও নির্মাণ করেন।

তিনি বলেন, অনেকদিন পর পরিচালনায় ফিরেছি। এরমধ্যে অনেক কিছু করার সুযোগ থাকলেও ব্যাটে-বলে মেলেনি বলে কাজ করা হয়নি। এছাড়া গান এবং নিজের প্রোডাকশন হাউজ নিয়ে ব্যস্ততা তো ছিলোই, যার কারণে হয়ে উঠেনি।

ছোটবেলা থেকেই আমার ইচ্ছা সিনেমা নির্মাণের। নির্মাণের প্রতি আমার ঝোঁকটা বেশি ছিলো। যার কারণে এই রিলেটেড কোন কিছুর সঙ্গে সংযুক্ত থাকতে চেয়েছিলাম। গান এবং আর্টের প্রতি ভালোবাসা থাকার কারণে সেগুলোতেই সময় দিয়েছি বেশি। একটু একটু করে সবকিছুই আয়ত্তে আনার চেষ্টা করি। আমার কাছে মনে হয়েছে ফিল্ম মেকিংয়ের জন্য মিউজিক সেন্সটাও গুরুত্বপূর্ণ, এই দুটোকে ব্লেন্ড করতে পারলে ভালো হবে। তাই আগে গানে ঢুকে যাই।

বলতে গেলে এটা আমার রক্তেই আছে। কারণ, আমার নানা আব্দুস সবুর ছিলেন এফডিসির চিফ আর্ট ডিরেক্টর। প্রায় ২৮ বছরের মত তিনি এই পেশায় ছিলেন। চলচ্চিত্র পরিচালক খান আতাউর রহমান সাহেবের সময়টাতে উনি কাজ করতেন। ৮ বারের মত জাতীয় চলচিচত্র পুরস্কারও পেয়েছেন। এছাড়াও তিনি ছিলেন বিখ্যাত চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদীনের ছাত্র। যার কারণে সিনেমার বিষয়টা আমার পারিবারিকই বলতে পারি।

তিনি আরও বলেন, গান আমার সবকিছু হলেও আমার স্বপ্ন সিনেমা বানাবো। ওই জায়গা থেকে নির্মাণেও যুক্ত থাকা। নাটক করেছি, বিজ্ঞাপন পরিচালনা করেছি। অসংখ্য বিজ্ঞাপনে জিঙ্গেল করেছি, আবহ সঙ্গীত করেছি।

২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘আইসক্রিম’ দিয়ে সিনেমার সংগীত পরিচালক হিসেবেও অভিষেক ঘটে তার। সেই সিনেমার আবহ সংগীতের পাশাপাশি তিনটি গানের সবগুলোরই সুর ও সংগীত পরিচালনা করেন নিধি। অর্ণব, মমতাজ ও তাহসানের গাওয়া সেই গানগুলোর জন্য শ্রোতাদের প্রশংসাও কুড়ান।

মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের সিনেমা ‘দামাল’। সিনেমাটির আবহ সংগীতের পাশাপাশি চারটি মৌলিক গানের সবগুলোরই সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন আরাফাত মহসীন। গানগুলোতে কণ্ঠ দিয়েছেন মমতাজ, প্রীতম হাসান, ইমরান ও কনা এবং সাকিব চৌধুরী ও ঐশী। সবগুলো গানেরই কথা লিখেছেন রাসেল মাহমুদ। এছাড়া এই সিনেমায় নিধির সংগীতায়োজনে একটি রবীন্দ্রসংগীতে কণ্ঠ দিয়েছেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা।

আরাফাত মহসীন জানান, খুব শিগগিরই তার নতুন গানের অ্যালবাম আসতে যাচ্ছে। যেখানে রয়েছে বেশকিছু চমকপ্রদ গান।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএন

  • সর্বশেষ
  • পঠিত