ঢাকা, বুধবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮ আপডেট : ৫ মিনিট আগে

ওমিক্রন উদ্বেগের কারণ, আতঙ্কের নয়: বাইডেন

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১১:৫৫

ওমিক্রন উদ্বেগের কারণ, আতঙ্কের নয়: বাইডেন
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ‘উদ্বেগের কারণ, আতঙ্কের নয়।’ লোকজন যদি টিকা গ্রহণ করে থাকেন এবং মাস্ক পরের, তাহলে আপাতত লকডাউন দেয়ার পক্ষেও তিনি নন। মঙ্গলবার বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

গত সপ্তাহে দক্ষিণ আফ্রিকা ও এর আশপাশের কয়েকটি দেশে ওমিক্রন শনাক্ত হয়। এরপরই দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয় যুক্তরাষ্ট্র। নতুন ধরন কতোটা ভয়াবহ, তা নিয়ে এখনও বিস্তর গবেষণা চলছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ওমিক্রনের উপস্থিতি পাওয়া না গেলেও এর প্রতিবেশি কানাডায় কয়েকজনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে কানাডার সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে।

জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের রোগ প্রতিরোধ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউচি সোমবার বলেছেন, ‘ওমিক্রন ভাইরাস কতটা ছড়াবে, এ ভাইরাস কতটা প্রবল হবে- তা এখনই বলা যাচ্ছে না।’

তবে বাইডেন বলছেন, ‘আমরা এই নতুন বিপদের মুখোমুখি হবো ও তার মোকাবিলা করবো। অতীতে যেমন নতুন বিপদের মোকাবিলা করেছি, সেভাবেই ওমিক্রনের মোকাবিলা করা হবে।’ তিনি বলেন, ‘মানুষ যদি ভ্যাকসিন নেন ও মাস্ক পরেন, তাহলে লকডাউন করার কোনো দরকার হবে না।’

কিন্তু প্রেসিডেন্ট এ কথা বললেও আর্থিক পরামর্শদাতা পাওয়েল বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি করোনার সংক্রমণ বেড়েছে। তার উপর ওমিক্রন ভাইরাস যদি ছড়িয়ে পড়ে, তাহলে তার প্রভাব আর্থিক ক্ষেত্রে পড়বে। বেকার বাড়বে, জিনিসপত্রের দাম বাড়বে।’

বক্তব্যে পাঁচ বছরের বেশি বয়সি সবাইকে ভ্যাকসিন নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন বাইডেন। তিনি বলেন, খোলা এলাকায় তো বটেই, ঘরের বাইরে ক্লাব, রেস্তোরাঁর মতো বন্ধ জায়গায় গেলেও মাস্ক পরা উচিত।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, ‘আবার লকডাউনের অবস্থায় ফিরে যাওয়া উচিত হবে না।’ তিনি বরং এই নতুন প্রজাতির করোনা ভাইরাস নিয়ে বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করতে চান।

বাইডেন জানিয়েছেন, যেখানে কম সংখ্যক লোকজন ভ্যাকসিন নিয়েছেন, সেখানে বেশি সংখ্যক লোকজন করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই সবার ভ্যাকসিন নেয়া জরুরি।

তিনি মনে করেন, শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, পুরো পৃথিবীর মানুষকেই ভ্যাকসিন নিতে হবে। যতক্ষণ তা না হচ্ছে, ততক্ষণ চুপ করে বসে থাকার প্রশ্নই নেই।

যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে ২৭ কোটি ৫০ লাখ ভ্যাকসিন গরিব দেশগুলোর জন্য দিয়েছে। তারা ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে আরও ১১০ কোটি ভ্যাকসিন দেবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/ টিটি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত