ঢাকা, রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ৯ মাঘ ১৪২৮ আপডেট : ২ মিনিট আগে

ওমিক্রনে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার ‘চতুর্থ ঢেউ’

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬:৪৭

ওমিক্রনে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার ‘চতুর্থ ঢেউ’
প্রতীকী ছবি
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দক্ষিণ আফ্রিকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জো পাহলা বলেছেন, ওমিক্রন ধরনের কারণে তার দেশ কোভিড-১৯ সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ে প্রবেশ করছে। তিনি বলেন, তবে এখনও রোগীদের চাপ সামলানোর সামর্থ্য হাসপাতালগুলোর আছে। খবর আল জাজিরার।

এক সংবাদ সম্মেলনে শুক্রবার জো পাহলা বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকার নয় প্রদেশের সাতটিতেই এখন ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। অনেক বেশি মৃত্যু দেখার আগেই এ ধরনকে ঠেকানো যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী তার দেশের সব নাগরিককে করোনা টিকার পূর্ণ ডোজ গ্রহণের জোর আহ্বান জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে তিনি বলেন, ওমিক্রন থেকে এটাই সবচেয়ে বেশি সুরক্ষা দেবে।

ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকায় কার্যত লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সেখানে বৃহস্পতিবার নতুন করে ১১ হাজার ৫৩৫ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ওয়ার্ল্ডডোমিটার্স এর তথ্য অনুযায়ী, আগের দিন বুধবার করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮ হাজার ৫৬১ জন। এর আগের দিন, অর্থাৎ মঙ্গলবার এ সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৩৭৩ জন। পুরো মহামারি পর্বে দক্ষিণ আফ্রিকায় এ পর্যন্ত করোনা প্রাণ গেছে ৮৯ হাজার ৯১৫ জনের।

গত ৮ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকার গাউতেং প্রদেশে (রাজধানী জোহান্সবার্গ) প্রথম করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়। তবে দেশটি ওমিক্রন শনাক্তের ঘোষণা দেয় নভেম্বরের শেষ দিকে।

ক্রমে করোনার এ ধরন বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। ইতোমধ্যে বিশ্বের ২৫টির বেশি দেশে ওমিক্রন ছড়িয়েছে। এরমধ্যে ভারত, সৌদি আরব, মালয়েশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র রয়েছে।

বিশ্বের অনেক দেশ ইতোমধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা ও এর আশাপাশের কয়েকটি দেশের সঙ্গে তাদের বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। কিন্তু তাতেও তেমন কাজ হচ্ছে না।

ভাইরাস বিশেষজ্ঞরা ইতোমধ্যে সতর্ক করেছেন যে, ওমিক্রন করোনা ভাইরাসের অন্য ধরনগুলো থেকে বেশ আলাদা। এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে সক্ষম। এর সংক্রমণ-ক্ষমতা করোনার অতিসংক্রমণশীল ধরন ডেল্টার চেয়েও বেশি।

বাংলাদেশ জার্নাল/ টিটি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত