ঢাকা, সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ১৪ মিনিট আগে

যুক্তরাজ্যের ২৫ শতাংশ মানুষ একবেলা কম খাচ্ছেন: ইপসোস

  জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশ : ১৯ মে ২০২২, ১৬:৫৬  
আপডেট :
 ১৯ মে ২০২২, ১৭:১৫

যুক্তরাজ্যের ২৫ শতাংশ মানুষ একবেলা কম খাচ্ছেন: ইপসোস
প্রতীকী ছবি
জার্নাল ডেস্ক

বিশ্বের উন্নতি অর্থনীতির দেশ যুক্তরাজ্যে বর্তমানে মূল্যস্ফীতি ৩০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে। এ প্রেক্ষিতে সেখানে বেড়েছে জীবনযাপনের খরচ। ঘর গরম রাখার জন্য যে হিটিং ব্যবস্থা, তাও বন্ধ রাখছেন তিনজনের মধ্যে দুজন ব্রিটিশ নাগরিক। গাড়ি চালানো কমিয়ে দিয়েছেন কেউ কেউ। অনেকে কোনো কোনো বেলা না খেয়ে খরচ বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। ইপসোস নামের জরিপ সংস্থার এক সমীক্ষায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানায়।

ইপসোস গ্রুপ একটি বহুজাতিক বাজার গবেষণা ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান। এদের সদর দপ্তর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে।

জরিপে বলা হয়, জীবনযাপনের খরচ অনেকটাই বেড়েছে যুক্তরাজ্যে। এ কারণে গ্যাস-বিদ্যুতের বিল বাঁচাতে ঘর গরম রাখার হিটিং ব্যবস্থা বন্ধ রাখছেন প্রতি তিনজনের মধ্যে দুজন। গাড়ি চালানো কমিয়েছেন ৫০ শতাংশ মানুষ। ২৫ শতাংশ মানুষ কোনো কোনো বেলা না খেয়ে খরচ বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। নিম্ন আয়ের অনেক মানুষের মধ্য এক-তৃতীয়াংশ জানিয়েছেন, মূল্যস্ফীতির কারণে তারা কোনো কোনো বেলার খাবার খেতে পারেননি।

ইপসোস ১১ ও ১২ মে ২ হাজার ৬১ জনের সাক্ষাৎ নিয়েছে। এরই ভিত্তিতে তারা এসব তথ্য জানিয়েছে। আগামী ছয় মাসে নিত্যপণ্যের মূল্য আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন জরিপে অংশ নেয়া বেশির ভাগ মানুষ।

ইপসোস গ্রুপের রাজনৈতিক গবেষণা বিষয়ক প্রধান গিডিওন স্কিনার বলেন, নানা অর্থনৈতিক পূর্বাভাসের ভিত্তিতে আগামী দিনগুলোয় আরও বেশি উদ্বেগজনক পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে, তা হয়তো বলাই যায়। সরকারের ওপর মানুষের জীবনযাপনে উচ্চব্যয়ের সংকট দূর করতে বেশি বেশি পদক্ষেপ নেয়ার জন্য চাপ বাড়বে।

এ পরিস্থিতিতে বুধবার মূল্যস্ফীতির যে তথ্য যুক্তরাজ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৯ দশমিক ১ শতাংশ। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড বলছে, এ বছরের শেষের দিকে মূল্যস্ফীতি ১০ শতাংশে গিয়ে পৌঁছাবে।

মূল্যস্ফীতি সামলাতে সরকারের ওপর চাপ বাড়লেও এখনই আরও সহায়তা বাড়াতে চান না যুক্তরাজ্যের অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক। আগামী শরৎকালে গৃহস্থালি পর্যায়ে বিদ্যুৎ বিল আরেক দফা বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে। তিনি জানান, এরপর পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

অপর একটি সংস্থা ইউগভ-এর আরেকটি জরিপে অংশ নেয়া ৭২ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, তাদের মতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সরকার অর্থনীতি ব্যবস্থাপনায় ভালো ভূমিকা রাখতে পারছে না। আগের বছরের তুলনায় এবার এমন মতপ্রকাশকারীদের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

ইউগভ ১ হাজার ৮১০ জনের সাক্ষাৎকার ১৪ থেকে ১৬ মে পর্যন্ত নিয়েছে।

এর আগে অপর এক জরিপে বলা হয়, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় জ্বালানির মূল্য প্রতি ব্যারেল ১০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এ কারণে যুক্তরাজ্যে মূল্যস্ফীতির হার এখন ৩০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থায় আছে। এ বছরের মধ্যে মূল্যস্ফীতি ১০ শতাংশে উঠবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড। এ বাস্তবতায় মে থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত প্রতি সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের নাগরিকদের সর্বজনীন ঋণ ২৫ ইউরো বাড়ানোর জন্য ব্রিটিশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সে দেশের গবেষণাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

বাংলাদেশ জার্নাল/স্বর্ণ/টিটি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত