ঢাকা, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শিরোনাম

সমুদ্রের মাঝে এক টুকরা একুরিয়াম: মালদ্বীপ

  জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশ : ০৭ জুন ২০২২, ১৩:০৮

সমুদ্রের মাঝে এক টুকরা একুরিয়াম: মালদ্বীপ
জার্নাল ডেস্ক

পৃথিবীর অন্যতম নয়নাভিরাম ও অপরূপ সৌন্দর্যের দেশ মালদ্বীপ। বিধাতা যেন দুই হাত ভরে প্রকৃতির রূপে সাজিয়েছেন দেশটিকে। নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি, স্বর্গের দ্বীপ, প্রকৃতির কন্যা যেন সৌন্দর্যের রানী। যা দুনিয়াজোড়া মানুষকে মুগ্ধ করে ও টানে।

ছোট ছোট দ্বীপগুলো যেন নানান রঙে সেজে পর্যটকদের হাতছানি দিয়ে ডাকছে। মালে আইল্যান্ডের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে উপভোগের জন্য সেখানে ছুটে যায় অসংখ্য দর্শনার্থী।

ছোট বড় প্রায় ১২০০ দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত মালদ্বীপ, যার রাজধানী মালে আইল্যান্ড । ১.৫ কিলোমিটার লম্বা এবং ১ কিলোমিটার চওড়া এই দ্বীপ বিশ্বের জনবহুল শহরের মধ্যে একটি। হানিমুন কাপল দের জন্য মালদ্বীপ হল ভ্রমনের একটি তির্থ স্থান।

ঢাকা থেকে কীভাবে যাবেন মালদ্বীপ

মালদ্বীপ যাওয়ার জন্য ঢাকা থেকে মালদ্বীপে সরাসরি দুই থেকে তিনটি ফ্লাইট আছে। তবে বাংলাদেশিরা মালদ্বীপ এয়ারওয়ে এবং শ্রীলংকা এয়ারলাইন্স যাতায়াত বেশি করে। তাছড়া ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে সরাসরি মালে পৌঁছায়। ঢাকা থেকে এ এয়ারলাইন্সগুলো সরাসরি মালদ্বীপের মালে ইন্টারন্যাশনাল বিমানবন্দরে পৌঁছায়। এরপর ইমিগ্রেশন শেষ করে এয়ারপোর্ট থেকে মাত্র ৪কিলোমিটার দূরত্বে মালের ট্যাক্সি করে যেতে পারবেন আপনার গন্তব্যে। চাইলে এয়ারপোর্টের সামনে থেকে ফেরি বা স্পিডবোট করে যেতে পারবেন মালে আইল্যান্ডের।

তবে ভ্রমনকে আরও একটু দীর্ঘায়ীত করতে চাইলে বাংলাদেশ থেকে প্রথমে শ্রীলংকার বন্দরনায়েকে আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট থেকে ট্রানজিট শেষ করে অন্য ফ্লাইটে মালদ্বীপের মালে ইন্টারন্যাশনাল বিমান বন্দরে যাওয়া যায় শ্রীলঙ্কা থেকে বিমানে মালদ্বীপে যেতে ১ ঘণ্টার মতো সময় লাগে এ ক্ষেত্রে খরচ কম হয় আর একইসাথে দুই দেশ ঘোরা হয়ে যায়।

মালদ্বীপ কোথায় থাকবেন

মালদ্বীপ এর মালে শহরে থাকার জন্য বেশকিছু রিসোর্ট আছ। যেমন:

সামান গার্ডেন, সামারসেট হোটেল, সেন্টার রাস ফুসি রিসোর্ট এছাড়াও আরও বেশ কিছু হোটেল বা রিসোর্ট রয়েছে। কোন হোটেলে উঠার আগে সে হোটেল সম্পর্ক জেনে উঠবেন। বেশিভাগ হোটেলেই ওয়াই ফাই থাকে তারপরও জেনে ওঠবেন। এছাড়াও কুরুম্বা ম্লদ্বীপ, হলিডে আইল্যন্ড রিসোর্ট, প্যারাডাইস আইল্যান্ড রিসোর্ট , সান এন্ড স্পা, বন্দোস আইল্যান্ড উঠতে পারেন।

মালদ্বীপে খরচ কেমন

মালদ্বীপের থাকা-খাওয়ার খরচ একটু বেশি । বিমানে ঢাকা থেকে মালদ্বীপের যাওয়া-আসা ৪৩০০০-৬০০০০ টাকা মত পড়বে। তবে কত আগের টিকিট কাটবেন তার ওপরে বিমান ভাড়া নির্ভর করে । শহরের মধ্যে থাকলে এক রাতে খরচ হবে ৩০০০-৭০০০ টাকা। আর যদি আইল্যান্ড এর কাছাকাছি কোন রিসোর্টে রাতে থাকতে চান তাহলে জনপ্রতি খরচ হবে ১৬০০০-২৮০০০ টাকা। । আর যদি সাধারণ মানের খাবার খেয়ে থাকেন তবে প্রতিবেলা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যেই হয়ে যাবে।

আর প্যাকেজের মাধ্যমে স্পিডবোর্ড ভাড়া করে ঘুরতে চাইলে খরচ পড়বে ১৫০০০-১৭০০০টাকা। তবে খরচ কমাতে চাইলে যত আগে সম্ভব বিমানের টিকিট কেটে রাখবেন এবং থাকার জন্য লোকাল রিসোর্টে বা গেস্টহাউসে থাকার চেষ্টা করবেন সেই সাথে যাতায়াতের জন্য সরকারি ফেরি ব্যবহার করবেন।

কিভাবে ঘুরবেন মালে আইল্যান্ড

মালদ্বীপের নয়নাভিরাম দৃশ্য আর সুন্দর আবহাওয়ার জন্য সবাই আকৃস্ট হয়। নারিকেল সুপারি গাছ সহ অন্যান্য নানান গাছগাছালিতে পরিপূর্ণ ছোট্ট একটি দ্বীপ মালে। আর পর্যটকদের পছন্দের এই মালে আইল্যান্ড সবসময়ই লোকে-লোকারণ্য থাকে।

শরীর আর মন ভোলানো দ্বীপ মালে আইল্যন্ড । নীলসাগর থেকে আসা মিষ্টি হাওয়া শরীর মনকে করে তুলে প্রাণবন্ত এখানে আসলে ভ্রমণ এর সকল ক্লান্তি যেন নিমিষেই চলে যায়। এখানকার প্রায় সবগুলো রিসোর্টগুলোর ইনফিনিটি পুল থেকে মালদ্বীপে আসল সৌন্দর্য উপোভোগ করা যায়।

সাঁতার জানা থাকলে বীচে সাঁতার কাটতে ভুলবেন না। মালে আইল্যান্ডের পূর্ব থেকে ভারুনুলা রালহুগান্ধুতে ফেরি তে গিয়ে অদ্ভুত সুন্দর সূর্যাস্ত দেখতে পারবেন । সার্ফিংও স্মোকেলিং করার জন্য এটি একটি উপযুক্ত জায়গা।

মালদ্বীপের খাবার মালদ্বীপের খাবার বেশি ভাগই আমিষের প্রধান্যটা বেশি পেয়ে থাকে। এখানকার মাস হুনি (টুনা মাছ, নারিকেল পিয়াজ ও লেবু দিয়ে তৈরি এক ধরনের বিশেষ খাবার যা রশি দিয়ে খেতে দেয়া হয়) ও নানান ধরনের ঠান্ডা পানীয় খুবই মজাদার। তবে বাঙালি খাবার খেতে চাইলে মালের শহরের 'ঢাকা ফুড ' রেস্টুরেন্টে যেতে পারেন।

তবে আন্ডারওয়াটার রেস্টুরেন্টে খাওয়ার অভিজ্ঞতাই অন্যরকম। মালে আইল্যান্ডের পাশাপাশি মালে শহরের মধ্যে আরও কিছু দর্শনীয় স্থানে ঘুরতে পারবেন। যেমন আর্টিফিশিয়াল বীচ , ওল্ড ফ্রাইডে মস্কো ,ন্যাশনাল মিউজিয়াম , সুলতান পার্ক, ন্যাশনাল আর্ট গ্যালারি, চিনা মালদ্বীপ ফ্রেন্ডশিপ ব্রিজ, ফিস মার্কেট ও গ্র্যান্ড ফ্রাইডে মস্কো ।

এছাড়া মালে থেকে কাছাকাছি অবস্থিত বিভিন্ন রিসোর্ট আইল্যান্ড থেকে ঘুরে আসতে পারেন সেই সাথে সেখানে গিয়ে থাকতেও পারেন। তবে রিসোর্ট এর আইল্যান্ড গুলোতে খরচ অনেক বেশি। ডে ট্রিপ এর অপশন থাকলে প্যাকেজ আকারে ঘুরে আসতে পারেন ।

মালদ্বীপে ভ্রমণ টিপস

* মালদ্বীপে যেতে হলে আগে থেকে ভিসা নেওয়ার দরকার হয়না এখানে ৩০ দিন মেয়াদে অন এ্যারাইভাল’ ভিসা নিতে হয়।

* জব করলে এনওসি,বিজনেস করলে ট্রেড লাইসেন্স ও স্টুডেন্ট হলে আইডি কার্ড ও দরকারে কাগজের ফটোকপি সাথে রাখবেন।

* জানুয়ারি থেকে মার্চ এই তিনমাস মালদ্বীপে যাওয়ার জন্য উপযুক্ত সময় তবে অফ সিজনে গেলে খরচ কম হবে।

* বিমানের টিকিটের ক্ষেত্রে এক থেকে দুই মাস আগে বুকিং দেওয়ার চেষ্টা করুন তাতে বিমানের টিকিট মূল্য কিছুটা কমে পাওয়া যাবে।

* মালদ্বীপে যেতে হলে যদি শ্রীলংকা হয়ে যেতে হয় তাহলে সময় থাকলে শ্রীলংকা ঘুরে তারপরে মালদ্বীপ যাবেন। তাতে দুটো দেশেই ঘোরা হয়ে যাবে।

* টুরিস্ট সিজনে মালে আইল্যান্ডে ঘুরতে হলে আগে থেকেই হোটেল বুকিং দেওয়া ভালো তাতে খরচ কম হওয়ার সাথে সাথে শেষ সময়ে বাড়তি ঝামেলা এড়ানো যায়।

* মালদ্বীপের ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে বিভিন্ন হোটেল বুকিং দিলে কিছু স্পেশাল অফার পাওয়া যায়

মালে আইল্যান্ড হেঁটে বেড়ানোর জণ্য স্যান্ডেল টাইপের জুতা নিবেন ।

* ঢাকা থেকে পৌছাতে রাত হয়ে গেলে মালে রাত কাটানোর জন্য যেকোনো কম খরচের হোটেলে থাকার চেষ্টা করুন যদি পরের দিন অন্য কোন আইল্যান্ডের যেতে চান।

* মালদ্বীপ বিলাসবহুল দেশ তাই খরচ কিছুটা বেশি কিন্তু বুদ্ধি করে যাতায়াতসহ শপিং খরচ কম করলে টাকা সাশ্রয় হবার সাথে সাথে ভালোভাবে ঘুরাও যাবে।

* মালদ্বীপের মালে কিছু রিসোর্টে ডে ট্রিপের ব্যবস্থা করে থাকে, তাই রিসোর্ট ভাড়া সাথে সাথে ট্রিপের প্যাকেজ নিলে খরচ কম এর মধ্যে হয়ে যাবে

* স্কুবা ড্রাইভিং না জানলে তার কোর্স করার ব্যবস্থাও রয়েছে মালদ্বীপের মালে আইল্যান্ডে ।

* রিসোর্ট থাকলে খাবার খরচ প্যাকেজের মধ্যে নেওয়ার চেষ্টা করবেন আর বাইরে খেলে মেন্যুবার থেকে লোকাল খাবার খাবেন, এখানে লোকাল খাবারের দাম অনেকটা কম

* এখানকার অধীকাংশ রেস্টুরেন্টই এলকোহলমুক্ত।

বাংলাদেশ জার্নাল/স্বর্ণ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত