৯৯৯-এ ফোন দিয়ে ইভটিজিংয়ের অভিযোগ, মুচলেকায় মুক্তি তরুণের

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০২২, ১৭:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ এ ফোন কলে যৌন হয়রানির অভিযোগে আলিম হোসেন (১৯) নামের একজন তরুণকে আটক করেছে পুলিশ।  এছাড়া ৯৯৯ এ ফোন কলে সাতক্ষীরার কলারোয়ার বোয়ালিয়ায় একটি বাল্য বিয়ে বন্ধ করা হয়েছে।

সোমবার ৯৯৯ এর ট্রেইনার ও মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের ফোকাল পার্সন পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার বলেন, রোববার দুপুর দেড়টায় ৯৯৯ নম্বরে যৌন হয়রানির অভিযোগ জানিয়ে খুলনা সদর থানার গগন বাবু রোড থেকে একজন কলার জানান, তার এলাকায় স্কুল ছাত্রীদের কিছু বখাটে ছেলে প্রতিনিয়ত যৌন হয়রানি মূলক আচরণ (ইভটিজিং) করে। তিনি কল দিয়ে আইনী ব্যবস্থার জন্য অনুরোধ জানান। 

৯৯৯ বিষয়টি তাৎক্ষণিক খুলনা সদর থানায় জানিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ জানায়। সংবাদ পেয়ে থানার একটি দল ঘটনাস্থলে যায় এবং সেখান থেকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আলিম হোসেনকে আটক করে। পরে অভিযুক্তের অভিভাবকরা থানায় হাজির হয়ে এ ধরণের অপরাধ আর করবে না বলে মুচলেকা দিলে আটক আলিমকে অভিভাবকদের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়।

আনোয়ার সাত্তার আরও বলেন, রোববার দুপুর দুইটায় সাতক্ষীরার কলারোয়ার বোয়ালিয়া থেকে বাল্য বিয়ের সংবাদ জানিয়ে ৯৯৯ কে একজন কলার জানান, তার গ্রামে একটি বাল্য বিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কনের বয়স এগারো বছর। কলার বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে ৯৯৯ এর কাছে আইনী সহায়তার জন্য অনুরোধ জানান। 
৯৯৯ তাৎক্ষণিক কলারোয়া থানায় বিষয়টি জানিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ জানায়। সংবাদ পেয়ে থানার একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বাল্য বিয়ে অনুষ্ঠান বন্ধ করে। পরে কলারোয়া সদর ইউএনও’র ভ্রাম্যমাণ আদালত কনের নানাকে এক মাস কারাদণ্ড দেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএম