ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ আপডেট : ১০ মিনিট আগে

বন্ধুত্বের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৮ আগস্ট ২০২২, ১৭:১৪

বন্ধুত্বের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা
নিজস্ব প্রতিবেদক

বন্ধুত্বের ফাঁদে ফেলে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে একটি প্রতারক চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। চক্রের নারী সদস্য মোবাইলে ফোনে বন্ধুত্বের সম্পর্ক স্থাপন করতো। পরে বাসায় ডেকে নিয়ে জিম্মি করে আপত্তিকর ছবি তুলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিত চক্রটি।

বুধবার রাতে উত্তরা পশ্চিম থানার বার-তের মোড় এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, চক্রের প্রধান মোহাম্মদ মজনু, তার বান্ধবী রওশন আরা রুমা ও চক্রের সদস্য আব্দুস সালাম।

উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মোহসীন বলেন, রুমা মোবাইলে ভুলে টাকা চলে গেছে বলে কোনো ব্যক্তির সঙ্গে ভাব করতো এবং এক পর্যায়ে বাসায় ডেকে আনতো। পরে মজনু চক্রের বাকি সদস্য নিয়ে ওই ব্যক্তিকে জিম্মি করতো। এরপর আপত্তিকর ছবি তুলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি।

ওসি বলেন, মজনু একটি বেকারিতে কর্মচারী হিসেবে কাজ করেন। সেই দোকানেরই মালিক আল আমিন। গত ১১ জুলাই তাকে ফোন করে রুমা। চালাকি করে এর আগেই তার মোবাইলে ৫০ টাকা দেন তিনি। এরপর ভুলে ওই টাকা চলে গেছে বলে ভাব জমান। এভাবে কয়েকদিন কথা বলার পর একদিন রুমা আল আমিনকে তার বাসায় দাওয়াত দেন। আল আমিন বাসায় যান। যাওয়ার সময় মজনুকেও নিয়ে যান। বাসায় যাওয়ার পর মজনু বাইরে যাবে বলে বেরিয়ে যান।

কিছুক্ষণ পর সেখানে ডিবি পরিচয়ে কয়েকজন প্রবেশ করে আল আমিনকে মারধর করেন এবং রুমার সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তোলেন। পরে ১০ লাখ টাকা দাবি করে তারা। টাকা না দিলে তাকে গুম করারও হুমকি দেয়া হয়।

আল আমিন এক পর্যায়ে তাদের সাড়ে ৩ লাখ টাকা দেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা আরও ৩৭ হাজার টাকা তারা ছিনিয়ে নেয়। পরে পুলিশকে জানালে অভিযান চালিয়ে তাদের তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ৫৬ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

মজনু প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, তাদের চক্রে মোট আটজন সদস্য রয়েছে। এর মধ্যে রুমা বন্ধুত্বের সম্পর্ক স্থাপনের কাজ করে। মজনু অন্যদের ডিবি সাজিয়ে নিয়ে বাসায় যায়। চক্রটির বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন ওসি।

বাংলাদেশ জার্নাল/সুজন/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত