ঢাকা, শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২, ৮ মাঘ ১৪২৮ আপডেট : ১৪ মিনিট আগে

যাযাবর ক্রীড়া ফেডারেশন!

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:২৭  
আপডেট :
 ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:৩৭

যাযাবর ক্রীড়া ফেডারেশন!
ফাইল ছবি
ক্রীড়া প্রতিবেদক

দেশে প্রায় অর্ধশতাধিক ক্রীড়া ফেডারেশন থাকলেও তার ৭৫ ভাগেরই নেই অনুশীলনের নির্দিষ্ট জায়গা। খেলার তুলনায় দেশে ক্রীড়া স্থাপনার সংখ্যাও কম। এদিকে ভেন্যু সঙ্কটে সময়মতো মাঠে গড়ায় না খেলা। আবার কিছু কিছু ভেন্যুতে হয় একাধিক খেলা।

সম্প্রতি জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়ামের ভেন্যু নিয়েও ঘটেছে ভাংচুরের ঘটনা। তাই এবার ভেন্যু সঙ্কট সমাধানে উদ্যোগ নিয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। ৯ জানুয়ারি সহকারী সচিব জাহাঙ্গীর হাওলাদারের সই করা একটি চিঠি দেশের প্রায় সব ক্রীড়া ফেডারেশনেই পঠিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে বসার আহ্বান জানানো হয়েছে।

তবে ১১ জানুয়ারি সভা হওয়ার কথা থাকলেও কোভিড পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ায় তা স্থগিত করা হয়। পরবর্তী দিনক্ষণ এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। নেপাল সাউথ এশিয়া (এসএ) গেমসে ২৫ ডিসিপ্লিনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ ১৯ স্বর্ণপদক পেয়েছে ৬ খেলায়। স্বর্ণ জেতা খেলাগুলোর মধ্যে ক্রিকেটই স্বয়ংসম্পূর্ণ।

সবচেয়ে বেশি ১০ স্বর্ণ জেতা আরচারির অনুশীলনের জন্য অবশ্য টঙ্গীর আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়াম বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বাকি চারটি তায়কোয়ান্দো, জিমন্যাস্টিকস, কারাতে ও ভারোত্তোলনের অনুশীলন হয় অন্যদের সঙ্গে ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়াম ভাগাভাগি করে।

এসএ গেমসে দুটি রুপা জেতা উশুকে কখনো হ্যান্ডবল স্টেডিয়াম, কখনো শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কিংবা ভাগাভাগি করতে হয় মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়াম। সামনেই কমনওয়েলথ, এশিয়ান ও ইসলামিক সলিডারিটি গেমস। তিনটি গেমসের ক্যাম্প করা নিয়ে ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়ামে জিমন্যাস্টিকসের সরঞ্জামাদি ভাংচুরের অভিযোগ উঠে কুস্তির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

তাই টনক নড়েছে দেশের ক্রীড়াঙ্গণের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠানের কর্তাদের। ফলে সকল ডিসিপ্লিনের ক্রীড়াবিদদের জন্য ক্রীড়া স্থাপনাগুলো বহুমূখী ব্যবহারের জন্য এমন সভায় যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বসছেন বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএইচ/এমএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত